অনুর দ্বীপ কুমার বিপুল চন্দ্র রায়

      বনি গেল মামার বাড়ি ,
              সঙ্গে তাহার মিষ্ট হাঁড়ি ।
      পিঁপড়ে দেখে দল বেঁধে ,
              ছুটলো সবাই বনির পিছে….
    বর-কনে
মোবারক হোসেন
খোকা খুকু বর কনে
মিছামিছি খেলায়,
ধুম উঠেছে মাঠের কোনে
আজকে বিকাল বেলায়।
আনন্দে খুকির বিড়াল
ডাকছে মিয়াও মিয়াও
তাল মিলিয়ে হাসছে সাথে
খোকার পোষা টিয়াও।
শালিক পাখি দেখছে সবই
গাছের ডালে বসে,
পেট পুরে খাবার খাবে
ঠোট বেয়ে যায় রসে।
খুকি যাবে শ্বশুর বাড়ি
করছে নাতো কান্না
কাজিও নেই,বাজিও নেই
ভাবছে শালিক,কেমন বিয়ে!
করছে না কেউ রান্না।
চলি এবার খাবার খুজি
মিছে বিয়েতে আর না।
বিচার বিহীন দেশ
মোহাম্মদ মাহমুদুল্লাহ
বিচার বিহীন দেশে আমি,
    সদা করি বাস।
নিত্য দিন যাচ্ছে বেড়ে,
  রক্তে ভেজা লাশ।
ঝোপ ঝাড়ে ড্রেন থেকে,
   পঁচা লাশের গন্ধ।
এদেশের আইন আজ,
   টাকার কাছে অন্ধ।
সালাম রফিক  জব্বার,
   ঘুমিয়ে কেন থাক।
এদেশ আজ ধংসের পথে,
    স্বয়ং চোখে দেখ।
তুমি রয়েছো হে মুজিব
     সার্বজনীন মাটি
তুমি রয়েছো হে মুজিব
রোদের ঝিলিমিলি লাল সবুজের পতাকায়,
তুমি রয়েছো হে মুজিব
স্বাধীন আকাশে উড়া শঙ্কচিল শালিকের পাখায়!
তুমি রয়েছো হে মুজিব
পদ্মা, মেঘনা, যমুনা, সুরমার মধুর কলতানে,
তুমি রয়েছো হে মুজিব
কৃষাণের দৃপ্ত হাসি! দিগন্তজোড়া সোনালী উদ্যানে!
তুমি রয়েছো হে মুজিব
সারাবিশ্বের ইতিহাসে কাব্য পুঁথির কথায় কথায়,
তুমি রয়েছো হে মুজিব
নিত্য নব পত্র কুঁড়ি বয়েসী বটের সহস্র লতায়!
তুমি রয়েছো হে মুজিব
আদি অন্ত শতসহস্র সাধু-সাধ্বীর বাবড়িতে,
তুমি রয়েছো হে মুজিব
বাগ বাগিচার কান্ত তরু স্নিগ্ধ রঙ্গিন পাঁপড়িতে!
তুমি রয়েছো হে মুজিব
বাংলাভাষা, বাংলা মা’য়ের মায়ার বন্ধনে,
তুমি রয়েছো হে মুজিব
সর্ব্বোকালের বাঙ্গালী হৃদয়ের প্রতিটি স্পন্দনে!