প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে কিশোরগঞ্জে শেষ হলো, শারদীয় দূর্গাপুজা
মোঃ আলী সোহেল, কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি :
কিশোরগঞ্জে বিজয়াদশমী প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হল কিশোরগঞ্জের হিন্দু সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। আজ শুক্রবার (১৫ অক্টোবর) দুপুরের পর থেকে পর্যায়ক্রমে প্রতিমা বিসর্জন শুরু হয়।
বেলা ৩ টার দিকে করিমগঞ্জ চামড়াঘাট স্নানঘাটে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে কিশোরগঞ্জে দেবীকে বিদায় জানানোর আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। এরপর কিশোরগঞ্জের একের পর এক বিভিন্ন মণ্ডপ থেকে চামড়াঘাট স্নানঘাটে প্রতিমা আসতে থাকে বিসর্জনের জন্য। প্রতিমা ঘাটে নেয়ার পর ভক্তরা শেষবারের মতো ধূপধুনো নিয়ে আরতি করেন। শেষে পুরোহিতের মন্ত্রপাঠ, শঙ্খ আর উলুধ্বনি, খোল, করতাল, ঢাকঢোলের সনাতনী বাদ্যের মধ্য দিয়ে দেবীকে নৌকায় তুলে বিসর্জন দেয়া হয়। প্রতিমা বিসর্জন মধ্য দিয়ে ভক্তরা তাদের জীবনের দুঃখ, বেদনা আর সকল অশুভকে বিদায় জানান। তবে প্রাদুর্ভাব কমলেও করোনার (কভিড-১৯) কারণে, এবার বিজয়া দশমীতে শোভা-যাত্রা হচ্ছে না।
করিমগঞ্জ চামড়াঘাট ছাড়াও কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় প্রতিমা বিসর্জন দেয়া হয়। প্রতি বছর প্রতিমা বিসর্জনের জন্য একটি ট্রাকে একসঙ্গে অনেক মানুষ গেলেও করোনা ভাইরাসের কারণে এবার একটি ট্রাকে প্রতিমা বিসর্জনের জন্য স্বাস্থ্য বিধি মেনে অল্প সংখ্যক জনসমাগম করতে পারবেন এই মর্মে সরকারি  নির্দেশনা দেয়া হয়।
চণ্ডীপাঠ, বোধন এবং দেবীর অধিবাসের মধ্য দিয়ে গত সোমবার (১১ অক্টোবর) থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুরু হয় হিন্দুদের ধর্মীয় সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। এবার দেবী এসেছেন গোড়ায় চড়ে, যাবেন এবার দোলায় চড়ে। এই স্লোগানে মুখরিত হয়ে ভক্তরা প্রতিমা বিসর্জন দেয়।