বাঘায় ৭টি ইউনিয়ন কেন্দ্রে করোনার গণটিকা কার্যক্রম শুরু।

বাঘায় ৭টি ইউনিয়ন কেন্দ্রে করোনার গণটিকা কার্যক্রম শুরু।

রাজশাহী

সাজ্জাদ মাহমুদ সুইট
বাঘা(রাজশাহী)প্রতিনিধি

রাজশাহীর বাঘা উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে মোট ৭ টি কেন্দ্রে করোনার গণটিকাদান কার্যক্রম শুরু হয়েছে। বাঘায় প্রথম দিনে প্রায় ৪ হাজার ২ শত মানুষকে টিকা দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে।

শনিবার (৭ আগস্ট) সকাল ৯টা থেকে শুরু হওয়া টিকাদান কার্যক্রম চলবে বেলা ৩টা পর্যন্ত। বাঘা উপজেলার ৭ টি ইউনিয়নে টিকা দিতে সকাল থেকে কেন্দ্রে ভিড় করেছেন ২৫ বছর ও তদূর্ধ্বরা।

অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পঞ্চাশোর্ধ্ব বয়স্ক, নারী ও শারীরিক প্রতিবন্ধী এবং দুর্গম ও প্রত্যন্ত অঞ্চলের জনগোষ্ঠীকে টিকা দেওয়া হচ্ছে। তবে উপজেলার পাকুড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মেরাজুল ইসলাম মেরাজ এক ব্যতিক্রম উদ্যোগ নিয়ে বয়ষ্ক ও প্রতিবন্ধীদের সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চেয়ারে বসিয়ে তাদের টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করেন।

প্রতিটি ইউনিয়নে টিকাদান কেন্দ্র রয়েছে এছাড়াও পৌরসভা এলাকার বসবাসরতরা স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে টিকা গ্রহণের সুযোগ পাচ্ছেন।

পাকুড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মেরাজুল ইসলাম মেরাজ বলেন,সরকারী ভাবে জনসাধারণের জন্য করোনার টিকা প্রদানের জন্য আমার ইউনিয়নে সুশৃঙ্খল ও সারিবদ্ধ ভাবে প্রথমে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করেছি।রোদের জন্য ছায়ার ব্যবস্থা করে চেয়ারে বসিয়ে বয়স্ক মানুষদের টিকা গ্রহনের ও নারী-পুরুষ এর জন্য আলাদা লাইন ও টিকা গ্রহনের জায়গা করেছি।টিকা গ্রহন করে আমার জনসাধারণ যেন ১৫-২০ মিনিট রেস্ট নিতে পারে তারও ব্যবস্তা আমি করেছি।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার রাশেদ আহমেদ বলেন,আজকে উপজেলার ৭ টি ইউনিয়নে ৬ শত জন করে মোট ৪ হাজার ২ শত জনগোষ্ঠী কে করোনা ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে। এই টিকা গ্রহনে কোন নেগেটিভ কিছু পাওয়া যায়নি। বৃদ্ধ, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধীদের টিকা গ্রহনে আজকে আগ্রহ বেশী দেখা গেছে। প্রতিটি টিকাদান কেন্দ্রগুলোতে। পর্যায়ক্রমে সরকারী ভাবেই উপজেলার সকল জনগোষ্ঠী কে এই করোনা ভ্যাকসিন দোওয়া হবে বাঘা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর মাধ্যমে।

বাঘা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পাপিয়া সুলতানা বলেন, বাঘা উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে টিকা কার্যক্রম চলমান রয়েছে।আমি এখন পর্যন্ত ১হতে৬ নাম্বার ইউনিয়নে পরিদর্শনে গিয়েছি এবং সরকারী নির্দেশনামত সুষ্ঠু ভাবে ৪ হাজার ২শত জন কে করোনার টিকা প্রদান করা হবে।

উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাডঃ লায়েব উদ্দিন লাভলু বলেন, সরকারী নির্দেশনায় আমি আগেই ২ ডোজ টিকা গ্রহন করেছি। আজকে উপজেলার ৭ টি ইউনিয়নেই ১,২ ও ৩ নাম্বার ওয়ার্ডে ৬শত করে মোট ৪ হাজার ২শত জন মানুষকে সরকারী সম্পুর্ণ বীনা মূল্যে করোনার টিকা দেওয়া হচ্ছে।আমি উপজেলার ৬ টি ইউপিতে সরাসরী উপস্থিত হয়ে টিকা কার্যক্রম পরিদর্শনে করেছি । বাংলাদেশ সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক ইউনিয়ন চেয়ারম্যান গন সুষ্ঠু সুশৃঙ্খল ভাবে জনসাধারণের টিকা গ্রহনের ব্যবস্তা করেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.