মিরসরাইয়ে একই পরিবারের তিনজনকে জবাই করে হত্যা

চট্টগ্রাম
মিরসরাইয়ে একই পরিবারের তিনজনকে জবাই করে হত্যা
মিরসরাই প্রতিনিধিঃ-
মিরসরাইয়ে একই পরিবারের তিনজনকে জবাই করে হত্যার ঘটনা ঘটেছে।
১৪ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার) ভোরে উপজেলার জোরারগঞ্জ ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের উত্তর সোনাপাহাড় গ্রামের নতুন বাজার সংলগ্ন মোস্তফা সওদাগরের বাড়ীতে ঘটনা ঘটেছে।
নিহতরা হলেন ঐ বাড়ির সুফি সাহেবের পুত্র মোহাম্মদ মোস্তফা মিয়া (৬৫), তার স্ত্রী জোসনা আক্তার (৫৫) ও মেঝ ছেলে আহমদ হোসেন (২৫)।
এ ঘটনায় নিহতের বড় ছেলে সাদেক হোসেনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে জোরারগঞ্জ থানা পুলিশ
মিরসরাই সার্কেলের এএসপি লাবিব আব্দুল্লাহ,  জোরারগঞ্জ থানা পুলিশ, পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই), ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট (সিআইডি)’র টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
কিভাবে এই নৃশংস হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে সেটা পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে না। তবে
মোস্তফা সওদাগর তার মেঝো ছেলে আহমেদ হোসেনকে কিছু জমি লিখে দেওয়ায় বড় ছেলে সাদ্দাম হোসেনের সাথে পিতা-মোস্তফা সওদাগরের বিরোধ চলছিল বলে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়।
তবে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে পারিবারিক কলহের জেরে বড় ছেলে তার মা-বাবা ও মেজ ভাইকে গলা কেটে হত্যা করেছে এবং উক্ত ঘটনায় নিহতের বড় ছেলে সাদেক হোসেন  ও তার স্ত্রী আইনুন নাহারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।
নিহতের ছোট ছেলে আলতাফ হোসেন জানান, রাতে প্রতিবেশী এক মহিলা কল করে জানায় আমাদের বাড়িতে একটা দূর্ঘটনা হয়েছে। এর কিছুক্ষণ পর আমার বড় ভাই সাদেক হোসেন কল করে আমাকে জানায় বাড়িতে ডাকাত ডুকছে। ডাকাতদল আমাদের মা-বাবা ভাইকে কুপিয়েছে। আমি তাৎক্ষণিক বাড়িতে এসে দেখি আমার মা-বাবা এবং মেঝ ভাইয়ের লাশ পড়ে আছে।
নিহতের বাড়াটিয়া মো:জাকারিয়া বলেন, মধ্যরাতে ডাকাত ডাকাত বলে চিৎকার দিচ্ছিলো নিহতের বড় ছেলে সাদেক হোসেন। তখন আমরা ঘরের সামনে গিয়ে দেখি দরজার বন্ধ। ভেতর থেকে তালা লাগানো। পরে সাদেক তার বাবা-মা’র রুম থেকে চাবি নিয়ে তালা খুলে।
তিনি আরো জানান, তাদের ঘরে ঢুকে আমরা কোন ডাকাত আসার কোন চিহ্ন বা কাউকে দেখতে পাইনি।
বিষয়টি নিশ্চিত করে ঘটনাস্থলে থাকা জোরারগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ নুর হোসেন মামুন বলেন, আমরা ঘটনাস্থলে আছি। তদন্ত চলছে। পরে বিস্তারিত জানাতে পারবো।
শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.