মিরসরাইয়ে চিরকুট লিখে গৃহবধূর আত্মহত্যা
মিরসরাই প্রতিনিধি
মিরসরাইয়ে চিরকুট লিখে সিলিং ফ্যানের সাথে ওড়না পেঁচিয়ে সাথে গলায় ফাঁস দিয়ে মাহমুদা আক্তার (২১) নামে একজন গৃহবধূর আত্মহত্যা করেছে।
শনিবার (২০নভেম্বর) দুপুরে উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের শিকার জনার্দনপুর গ্রামের ছাদেক রহমানের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটেছে। আত্মহননকারী গৃহবধূ ঐ বাড়ীর প্রবাসী মঈনুল ইসলাম রাসেলের স্ত্রী ও ৫ বছর বয়সী এক কন্যা সন্তানের জননী।
নিহতের শ্বশুর বাড়ির বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়,  রাসেল ঢাকার গাজীপুরে একটি কারখানায় চাকুরি করার সুবাদে মাহমুদার সাথে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে নিজে পছন্দ করে কোর্ট হলফনামার মাধ্যমে বিয়ে করে তাকে বাড়িতে নিয়ে আসে৷ এরপর থেকে তারা স্বামী-স্ত্রী আলাদা ঘরে বসবাস করে। পারিবারিক ভাবে বাড়ীর অন্যান্য স্বজনদের সাথে তেমন যোগাযোগ ছিলনা। তাদের একটি কন্যাসন্তান হয়। এরমধ্যে রাসেল প্রবাসে চলে যায়। ঘরে তার স্ত্রী মাহমুদা মেয়েকে নিয়ে একাই থাকতো৷ শনিবার সকালে মেয়েকে স্থানীয় একটি স্কুলে দিয়ে এসে কোন এক সময় ফ্যানের সাথে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে। পরে বাড়ীর লোকজন তাকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয়। নিহতের স্বামী গত রাতে প্রবাস থেকে রওয়ানা হয়ে আজ দেশে পৌঁছেছে। যেসময় মাহমুদা আত্মহত্যা করেছে তখন সে ঢাকা বিমানবন্দরে অবতরণ করে।
জোরারগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জসিম উদ্দিন জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে নিহত গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসি এবং নিহতের লাশের সাথে হাতে লিখা একটা চিরকুট পাই। চিরকুটে তার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয় বলে লিখা ছিল। এছাড়া তার মায়ের সাথে অভিমানের বিষয়ে কিছু বিষয় উল্লেখ রয়েছে। চিরকুট ও অন্যান্য আলামত যেমন মোবাইলে থাকা টিকটক এবং অশ্লীল ভিডিও থেকে নিশ্চিত যে মাহমুদা আত্মহত্যা করেছে। এবিষয়ে অপমৃত্যু মামলা রজু করা হয়েছে এবং রবিবার সকালে মাহমুদার লাশ পোস্টমর্টেম এর জন্য চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হবে।