নেত্রকোণা প্রতিনিধি: নেত্রকোণার দূর্গাপুরে
পিতার সাথে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে সৎমা মজিদা খাতুন (৬৮) এর পা ভেঙ্গে দেয়ার অভিযোগে হাকিম মিয়া (২৩) কে আটক করেছে পুলিশ। আজ
রবিবার (২১ মার্চ) সকালে মামলার পরপরই দুপুরে পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। হাকিম মিয়া দুর্গাপুর উপজেলার পৌর এলাকার ৬ নং দশাল গ্রামের সাহেব আলীর প্রথম স্ত্রীর চতুর্থ ছেলে। গত শনিবার (১৯ মার্চ) রাতে তাদের নিজ বাড়িতেই পৈত্রিক ভিটা নিয়ে এই ঘটনা ঘটে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সাহেব আলীর প্রথম স্ত্রী ফুলেমা খাতুন প্রায় ২০ বছর পূর্বে মারা গেছেন। পরবর্তীতে সংসার সামলাতে মজিদা খাতুনকে বিয়ে করেন সাহেব আলী। এদিকে প্রথম স্ত্রীর ৫ ছেলে সন্তান রয়েছে। এই ছেলেদের মধ্যে হাকিম চতুর্থ ছেলে। সে ও তার আরেক ভাই মঞ্জু মিয়াসহ তার বাবা ও বর্তমান মায়ের সাথে ১৬ শতাংশ জমি নিয়ে বিরোধে লিপ্ত রয়েছে দীর্ঘদিন ধরেই। এরই জের ধরে জমি লিখিয়ে নিয়ে গত শনিবার (২০ মার্চ) বাবা মাকে বের করে দেবে বলে হুমকী দেয়। এসময় বাবার সাথে কথা কাটাকাটির ঘটনা ঘটে। এসময় আহত হন সৎ মা। তার পায়ে ব্যাথা পান।
এ নিয়ে সৎ মায়ের পক্ষে থাকা হাকিমের মায়ের পেটের আপন বড় ভাই ফজলু মিয়া আজ রবিবার (২১ মার্চ) সকাল ১১ টায় হাকিম জোর জবর দস্তিতে জমি লিখে নেয়ার জন্য মাকে বাঁশের সাথে বেধে মারধর করার অভিযোগ আনয়ন করেন। থানায় লিখিত দিলে পুলিশ অভিযোগটি আমলে নিয়ে হাকিমকে আটক করে
এদিকে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বাবার সাথে হাকিমের কথা কাটাকাটির সময় সৎ মা থামাতে আসলে ধাক্কা লেগে পড়ে যান। এসময় পায়ে ব্যাথা পেয়েছেন। এই ঘটনা নিজেদের মধ্যে মীমাংসা করার চেষ্টা চলছে বলেও সুত্রটি জানায়। এর আগেও একাধিকবার ভাইয়ে ভাইয়ে, বাবা ছেলে, সৎ মাসহ সকলেই বসতবাড়ি নিয়ে এমন বিবাদে লিপ্ত হয়েছে। পরে আবার মীমাংসাও হয়ে পড়ে।
এ ব্যাপারে দুর্গাপুর থানার ওসি শাহনুর এ আলম জানান, আমাদের কাছে হাকিমের বড় ভাই ফজলু মিয়া অভিযোগ করেছেন। আমরা সাথে সাথে আমলে নিয়েছি। আহত নারীকে তারাই হাসপাতালে ভর্তি করেছে বলেও জানান।
ফয়সাল চৌধুরী
২১-০৩-২০২১ রোববার